Home » কাদম্বিনী গাঙ্গুলি জীবনী || kadambini ganguly biography

কাদম্বিনী গাঙ্গুলি জীবনী || kadambini ganguly biography

kadambini ganguly biography

ব্রিটিশ রাজত্তে নারীর অধিকার এবং শিক্ষা বরাবরই বিতর্কের বিষয় ছিল। ব্রিটিশ শাসনকালে ভারতীয় নারীদের পর্দার আড়ালে লুকিয়ে থাকতে হবে এটাই ছিল নিয়ম। তৎকালীন অসহায় নারীদের কাছে শিক্ষা ও কর্মজীবন ছিল এক দুঃস্বপ্নের মত। তবে, এই গল্পের মহিলা সেই সমস্ত স্টেরিওটাইপগুলি ভেঙে মাথা উঁচু করে আত্মপ্রকাশ করেছিল!


মহিলাদের স্বাধীনতার সীমানা ভেঙে অসাধারণ মহিলা কাদম্বিনী গাঙ্গুলি অনেক কিছুরই নতুন সূচনা করেছিলেন। 

কাদম্বিনী গাঙ্গুলি পুরো ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের প্রথম মহিলা স্নাতক ছিলেন এবং তিনি কেবল ভারতে নয়, সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ায় পশ্চিমা ওষুধের প্রথম মহিলা অনুশীলনকারী হয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি কলকাতা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হওয়া প্রথম মহিলা।

কাদম্বিনী গাঙ্গুলি কে ছিলেন?

১৮৬১ সালে ভাগলপুরে জন্ম গ্রহন করেন কাদম্বিনী বোস, এবং তার শৈশব কাতে বরিশালের চাঙ্গিতে (বর্তমানে বাংলাদেশে)।  কাদম্বিনীর শৈশব বাংলার নবজাগরণ দ্বারা প্রবলভাবে প্রভাবিত হয়েছিল। 

প্রথমে ব্রাহ্ম ইডেন মহিলা বিদ্যালয়, এবং পরে কলকাতার বাল্যগঞ্জের হিন্দু মহিলা বিদ্যালয়ে। তার দ্বিতীয় স্কুলের নামে ছিল বঙ্গ মহিলা বিদ্যালয় ; দুই বছর পরে, ১৮৭৬ সালে তিনি বেথুন স্কুলের ভর্তি হয়েছিল। পরবর্তীতে কাদম্বিনী কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রবেশিকা পরীক্ষাএ বসেন এবং  তিনি বেথুন স্কুল থেকে প্রথম প্রার্থী যিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশিকা পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন এবং ১৮৭৮ সালের প্রথম পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে, প্রথম মহিলা স্নাতক হয়ার ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন। কাদম্বিনী পুরো ব্রিটিশ রাজ্যে প্রথম দুই মহিলা স্নাতকের একজন ছিলেন, অন্য জন ছিলেন চন্দ্রমুখী বসুর। কাদম্বিনী এর পরে চিকিৎসা শাস্ত্র নিতে পড়াশুনা করতে আগ্রহী হন।

তিনি তার শিক্ষার পাশাপাশি নারীদের কাছে শিক্ষাকে আরও সহজলভ্য করার জন্য অবিরাম চেষ্টা করতেন। তার বাবা ব্রজা কিশোর বসু ছিলেন ব্রাহ্মসমাজের একজন গণ্য মান্ন বাক্তি। প্রধান শিক্ষক হিসাবে তিনি মহিলা মুক্তির জন্য আগ্রহী ছিলেন এবং ১৮৬৩ সালে ভাগলপুর মহিলা কমিটির প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, এটি ছিল ভারতের প্রথম মহিলা সংগঠনের।

এটি বেথুন স্কুলেই কাদম্বিনী তার ভবিষ্যতের স্বামীর সাথে দেখা হয়। তাঁর নাম ছিল দ্বারকানাথ গাঙ্গুলি, তিনি কাদম্বিনীর থেকে ১৭ বছরের বড় ছিলেন। দ্বারকানাথ গাঙ্গুলি ব্রাহ্মসমাজ এবং মহিলা মুক্তির এক প্রবল সমর্থক ছিলেন। সম্ভবত তিনিই কাদম্বিনী কে চিকিৎসা শাস্ত্র নিতে পড়াশুনা করতে উদবুদ্ধ করেন।

একজন মহিলা চিকিত্সক হওয়ার রাস্তা তার পক্ষে সহজ ছিল না। তার যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও, কলকাতা মেডিকেল কলেজ তাকে ভর্তি করতে অস্বীকার করেছিল, যেহেতু সেখানে আগে কোন ভারতীয় মহিলা ভর্তির ইতিহাস নেই।

 সেই একই সময়, দ্বারকানাথ গাঙ্গুলিও কলকাতা মেডিকেল কলেজে ছাত্র ছাত্রীদের থাকার ব্যবস্থা এবং মহিলা ভর্তি নিশ্চিত করতে প্রচার করছিলেন । অবশেষে ১৮৮৪ সালে, দম্পতি আইনত পদক্ষেপ নেবার হুমকি দেওয়ার পরে তারা তাকে কলেজে ভর্তি করান।

১৮৮৬ সালে তিনি প্রথম ভারতীও মহিলা চিকিৎসক হন এবং রোগী দের সেবা করার অনুমতি পান। তিনি তাঁর GBMC (Graduate of Bengal Medical College) ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন, যা তাকে রোগী দের সেবা করার অনুমতি দিয়েছিলেন। তার সাথে আরও একজন মহিলা আনান্দি গপাল জশি এই ডিগ্রি অর্জন করেন।

চিকিৎস অধ্যয়নের জন্য কাদম্বিনীকে প্রতি মাসে 20 টাকার বৃত্তি প্রদান করা হয়। তবে স্নাতক শেষ হওয়ার পরে, তিনি আরও শিক্ষার জন্য ১৮৯২ সালে লন্ডনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে লেডি ডাফারিন মহিলা হাসপাতালে (যেখানে তার বেতন ছিল মাসে 200 টাকা) খুব অল্প সময়ের জন্য কাজ করেছিলেন। এর পিছনে সম্ভাব্য কারণটি হিসেবে তার সহকর্মী এবং প্রশাসনিক কর্মীদের তীব্র বিরোধিতা মনে করা হয়।

রীতিনীতির তোয়াক্কা না করে কাদম্বিনী তার সন্তানদের তার বড় বোনের কাছে রেখে ১৮৯৩ সালে ইংল্যান্ডে পারি দেন।
অবিশ্বাস্য ইচ্ছাশক্তি , দ্বারকানাথের অবিচ্ছিন্ন সমর্থন এবং লন্ডনে অবস্থিত তার এক আত্মীয় ব্যারিস্টার মনোমোহন ঘোষের সহায়তায় কাদম্বিনী এডিনবার্গের স্কটিশ কলেজে মেডিকেল সায়েন্সে ট্রিপল ডিপ্লোমা কোর্সে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। কাদম্বিনী লন্ডন থেকে ফিরে এসেছিলেন কলেজ অফ ফিজিশিয়ানস, এডিনবার্গ (এলআরসিপি), কলেজ অফ সার্জনেস, গ্লাসগো (এলআরসিএস) এর লাইসেন্স, এবং চিকিত্সক ও সার্জনস অনুষদের ডাবলিন (এলএফপিএস) এর লাইসেন্সের মর্যাদাপূর্ণ যোগ্যতা নিয়ে। সে বছর ১৪ জন সফল প্রার্থীর মধ্যে তিনিই ছিলেন একমাত্র মহিলা এবং এমন দুর্লভ কীর্তি অর্জনকারী প্রথম ভারতীয় মহিলা। তিনি পেডিয়াট্রিক্স এবং স্ত্রীরোগবিদ্যায়ও বিশেষীকরণ করেছেন।
ভারতে ফিরে আসার পরে, তিনি লেডি ডাফারিন হাসপাতালে অল্প সময়ের জন্য কাজ করেছিলেন এবং পরে তাঁর ব্যক্তিগত অনুশীলন শুরু করেছিলেন।

সামাজ সংস্কারে তার ভূমিকা

চিকিৎসক হওয়া ছাড়াও কাদম্বিনী বেশ কয়েকটি সামাজিক আন্দোলনে অগ্রণী ছিলেন। যদিও ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস (আইএনসি) ১৮৮৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, তবে এখানে মহিলাদের অংশ নিতে দেয়া হয়নি – দ্বারকানাথ এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই সরব হয়েছিলেন। তবে ১৮৮৯ সালে কাদম্বিনী এবং আরও পাঁচ জন মহিলাকে অংশ নিতে দেওয়া হয়েছিল। ১৯০6 সালে বঙ্গভঙ্গ যখন দেশকে বিভক্ত করা হয়েছিল, কাদম্বিনী কলকাতায় এক মহিলা সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন এবং ১৯০৮ সালে এর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। একই বছরে তিনি প্রকাশ্যে সত্যগ্রহকে সমর্থন করেছিলেন এবং শ্রমিকদের সহায়তার জন্য তহবিল সংগ্রহের জন্য লোককে সংগঠিত করেছিলেন। কাদম্বিনী ১৯১৫ সালের মেডিকেল সম্মেলনে মহিলা প্রার্থীদের ভর্তি না করার কারনে মেডিকেল কলেজের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বক্তব্য রেখেছিলেন।
তাঁর এই বক্তৃতাই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে বাদ্ধ করে তাদের নিয়ম সংশোধন করতে এবং সমস্ত মহিলা ছাত্রদের জন্য তাদের দরজা উন্মুক্ত করে।


কাদম্বিনী উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছিলেন তবে এটি কখনই তার কাজে বাধা পেতে দেয় না। ১৮৯৮ সালে দ্বারকানাথের মৃত্যুর ফলে তিনি বেশিরভাগ জনজীবন থেকে সরে আসেন, এই ঘতনা তাঁর স্বাস্থ্যের উপরও প্রভাব ফেলেছিলেন। তবে মৃত্যুর এক বছর আগে পর্যন্ত তিনি মহিলা খনির শ্রমিকদের সহায়তার জন্য বিহার ও উড়িষ্যা সফর করেছিলেন। তিনি মারা যাওয়ার দিন অবধি তিনি কোনও মেডিকেল কল প্রত্যাখ্যান করেননি। ১৯২৩ সালের ৩ অক্টোবর সন্ধ্যায় ৬৩ বছর বয়সী কাদম্বিনী মারা যান । এদিনও তিনি একজন রোগীর উপর একটি গুরুতর অপারেশন করেছিলেন।

আত্মবিশ্বাসী এবং দৃঢ় প্রত্যয়ী কাদম্বিনী গাঙ্গুলি ছিলেন নারী শিক্ষা এবং অধিকারের স্বর। আজও তার গুণাবলী এবং সংকল্প এখনও সমস্ত মহিলার জন্য অনুপ্রেরণা হিসাবে বিদ্যমান!